ইউরোর প্রথম সেমিফাইনাল আজ; মুখোমুখি ফ্রান্স ও স্পেন

  বিশেষ প্রতিনিধি    09-07-2024    19
ইউরোর প্রথম সেমিফাইনাল আজ; মুখোমুখি ফ্রান্স ও স্পেন

ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম সেমিফাইনালে আজ মুখোমুখি হবে ফ্রান্স ও স্পেন। ম্যাচটি বাংলাদেশ সময় আজ রাত ১টায় মিউনিখের আলিয়াঞ্জ এরিনা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে। এই ম্যাচকে কেন্দ্র করে ফুটবল উন্মাদনায় ভাসছে গোটা ইউরোপ। কেননা এবারের আসরের একমাত্র দল স্পেন, যারা এখনও পর্যন্ত হারের মুখ দেখেনি। শতভাগ জয় নিয়ে জায়গা করে নিয়েছে সেমিফাইনালে। অপরদিকে ২৪ বছরের খরা কাটিয়ে মুকুট ফিরে পেতে মরিয়া ফ্রান্স।

দেখতে দেখতে শেষের পথে ইউরোপিয়ান ফুটবলের শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ। ২৪ দল নিয়ে শুরু হওয়া এই টুর্নামেন্টে বাকি আছে এর মাত্র চার দল। প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে ইউরোপের দুই জায়েন্ট স্পেন ও ফ্রান্স। তবে ইউরোতে এখন পর্যন্ত নকআউটে একাধিকবার এই দুই দল মুখোমুখি হলেও প্রথম বারের মতো সেমিফাইনালে লড়বে ফরাসিরা ও স্প্যানিশরা। যার কারণে ফুটবলপ্রেমীদের বাড়তি নজর থাকবে এই ম্যাচে।

র‍্যাংকিংয়ে যদিও স্পেন থেকে এগিয়ে আছে ফ্রান্স। স্পেন যেখানে অষ্টম স্থানে, ফ্রান্স সেখানে দ্বিতীয় অবস্থানে। এখন পর্যন্ত ৩৬ বারের মুখোমুখিতে স্পেন ১৬টি ও ফ্রান্স ১৩টি জয় পেয়েছে, ড্র হয়েছে বাকি ৭টি। তবে বড় আসরে এগিয়ে ফ্রান্স। বড় আসরে এটা হবে দুই দলের ষষ্ঠ লড়াই। প্রথম চারটির মধ্যে তিনটিই জিতে নেয় ফ্রান্স (১৯৮৪ ইউরোর ফাইনালে ২-০তে, ২০০০ ইউরোর শেষ আটে ২-১-এ ও ২০০৬ বিশ্বকাপের শেষ আটে ৩-১-এ)। সর্বশেষ ২০১২ ইউরোর কোয়ার্টার ফাইনালে ২-০ গোলে জিতেছে স্পেন। ১৯৯৬ ইউরোর গ্রুপ পর্বে দুই দলের লড়াইটা ড্র হয় ১-১ গোলে।

ইউরোর সেমিফাইনাল হিসাব করলে পাল্লা ভারি স্পেনের দিকেই। ইউরোতে স্পেনই একমাত্র দল, যারা কিনা পাঁচ ম্যাচের সবক’টিতেই জিতেছে। ইউরোর ইতিহাসে এক আসরে কোনো দলই টানা ছয়টি ম্যাচ জিততে পারেনি। তাদের একমাত্র হারটি ২০২০ সালের ইউরোতে ইতালির কাছে। অন্যদিকে ইউরোর সেমিতে মোট পাঁচবার খেলে ফ্রান্স জিতেছিল তিনটিতে, হেরেছিল দুটিতে। আজ ফ্রান্সকে হারালে সেই রেকর্ডটি গড়বে স্প্যানিশরা। অন্যদিকে নিজেদের ফুটবল ইতিহাসে চতুর্থবারের মতো ইউরোর ফাইনালে চোখ ফ্রান্সের। ১৯৮৪, ২০০০ ও ২০১৬ সালে ফাইনাল খেলেছিল তারা।

সংবাদ সম্মেলনে স্পেনের কুকুরেইয়া বলেন, লোকেরা ফেবারিট না ভাবলেও নিজেদের প্রতি আত্মবিশ্বাসের কমতি ছিল না তাদের। তিনি বলেন, ‘আমরা আত্মবিশ্বাস নিয়ে শুরু করেছিলাম, আমাদের হারানোর কিছু নেই। এখন সেই আত্মবিশ্বাস বেড়েছে এবং আমরা টুর্নামেন্টের মূল মুহূর্তে আছি। আমি জানতাম, আমাদের দারুণ একটি দল আছে, যা প্রমাণিত। আমরা এই পর্যন্ত আসতে কঠোর পরিশ্রম করেছি এবং এখন আমাদের শেষ বড় প্রচেষ্টা দরকার। আরমাত্র দুটি ধাপ।’

দুই ফুটবল পরাশক্তির দ্বৈরথে সেরা একাদশ নিয়েই নামবে তারা। ফ্রান্সের বিপক্ষে ৪-৩-৩ ফরমেশনে দল নামাতে পারেন স্পেন কোচ লুইস ডি লা ফুয়েন্তে। অন্যদিকে ফরাসি কোচ দিদিয়ের দেশ্যম এমবাপ্পেদের নামাতে পারেন ৪-৩-১-২ ফরমেশনে।

স্পেনের সম্ভাব্য একাদশ: উনাই সিমোন, নাভাস, নাচো, লাপোর্তে, কুকুরেলা, ওলমো, রদ্রি, রুইজ, ইয়ামাল, মোরাতা, উইলিয়ামস। নিষিদ্ধ : কারভাহাল, নোরম্যান্ড।

ফ্রান্সের সম্ভাব্য একাদশ: ম্যাগনান, কুন্দে, সালিবা, উপামেকানো, হার্নান্দেজ, কান্তে, চুয়েমেনি, কামাভিঙ্গা, গ্রিজম্যান, মুয়ানি, এমবাপ্পে।

খেলাধুলা-এর আরও খবর