আইএস হামলায় ধ্বংসস্তূপে পরিণত হওয়া ইরাকের ঐতিহাসিক ‘আল নূরি’ মসজিদ পুনর্নির্মাণে সহযোগিতা করবে ফ্রান্স।

রোববার জঙ্গি গোষ্ঠীটির সাবেক ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত মোসুল সফরের সময় এ প্রতিশ্রুতি দেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাকরন। বলেন- সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে আঞ্চলিক শক্তির সাথে কাঁধে-কাঁধ মিলিয়ে কাজ করবে তার সরকার।

২০১৪ সালে মোসুলের বিখ্যাত ‘আল নূরি’ মসজিদ থেকেই কথিত ‘ইসলামিক খেলাফত’ প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেন জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস প্রধান আবু বকর আল বাগদাদি। এর ঠিক তিন বছর পর বহুজাতিক বাহিনীর কাছে পরাস্ত হওয়ার আগ-মুহূর্তে বিস্ফোরকের মাধ্যমে ঐতিহাসিক স্থাপনাটি ধ্বংস করে আইএস।

ইমানুয়েল ম্যাকরন বলেন, সিরিয়া-ইরাকে স্বঘোষিত খেলাফত রাষ্ট্র থেকেই গোটা বিশ্বে হামলা চালিয়েছিল জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস। হত্যার সময় কখনোই ধর্ম-জাতীয়তা বিবেচনা করে না তারা। এমনকি বহু মুসলিমকে আইএস নারকীয়তার শিকার হতে হয়েছে।

আল-নূরি মসজিদ পরিদর্শনের সময় ঐতিহাসিক স্থাপনাটির সংস্কারে ফ্রান্সের সহযোগিতার কথা জানান দেশটির প্রেসিডেন্ট। বর্তমানে, ইউনেস্কো এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের যৌথ উদ্যোগে চলছে মসজিদ মেরামতের কাজ।

ম্যাকরন আরও বলেন, মধ্যপ্রাচ্যের নিরাপত্তা এবং শান্তি স্থাপনে ফ্রান্সের পক্ষে যতোটা সম্ভব, সেটাই করবে। কাঁধে-কাঁধ মিলিয়ে আঞ্চলিক সরকার এবং ইরাকি প্রশাসনের সাথে সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে কাজ করবো। জঙ্গি গোষ্ঠীটির ধ্বংস করা ঐতিহাসিক ‘আল নূরি’ মসজিদের পুনর্নির্মাণেও আমরা আগ্রহী।

মধ্যপ্রাচ্যে অস্থিরতা হ্রাস, আঞ্চলিক শান্তি স্থাপন ও সহযোগিতার লক্ষ্যে বাগদাদে অনুষ্ঠিত হয় আঞ্চলিক সম্মেলন। এতে যোগ দেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট। স্পষ্ট জানান- সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় কঠোর অবস্থানে থাকবে ফ্রান্স।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *