অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সাক্ষী হল শ্রীলঙ্কার অন্যতম বৃহৎ সুন্দরী প্রতিযোগীতা ‘মিসেস শ্রীলঙ্কা ২০২১’। পুরস্কার নেয়ার মঞ্চে ভুল বোঝাবুঝির ফলে পরিস্থিতি এমনই বাড়াবাড়ি পর্যায়ে চলে যায় যে, মাথায় আঘাত নিয়ে মঞ্চ ছাড়তে হয় শ্রীলঙ্কার সবচেয়ে বড় সুন্দরী প্রতিযোগিতার বিজয়ীকে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানায়, গত রোববার কলম্বোর একটি থিয়েটারে ‘মিসেস শ্রীলঙ্কা’র ফাইনালে অনুষ্ঠানে পুষ্পিকা ডি সিলভাকে ২০২১ সালের বিজয়ী ঘোষণা করা হয়।

বিচারকরা সিলভাকে বিজয়ী ঘোষণা করার কিছুক্ষণ পর সিদ্ধান্ত পাল্টে প্রথম রানার আপকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। পরে মুকুট খুলতে গিয়ে মাথায় চোট পান সিলভা।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, ঘোষণার কয়েক মুহূর্ত পরে ২০১৯ সালের বিজয়ী ক্যারোলিন জুরি তার মুকুটটি ছিনিয়ে নেন। ক্যারোলিন দাবি করেন, ডি সিলভা আসলে তালাকপ্রাপ্ত। তিনি এ খেতাবের যোগ্য নন।

জুরি বলেন, ‘এরইমধ্যে বিয়ে হয়েছে এবং বিচ্ছেদ হয়েছে এমন নারীরা নিয়ম অনুযায়ী এ খেতাব পেতে পারেন না। তাই আমি দ্বিতীয় স্থান অধিকারীকে মুকুটটি দিয়ে দিচ্ছি।’

এ কথা বলেই ডি সিলভার মাথা থেকে সোনালি মুকুট তুলে নিয়ে রানার-আপের মাথায় পরিয়ে দেন তিনি। অশ্রুসিক্ত চোখে মঞ্চ ছাড়েন ডি সিলভা।

মঞ্চের বিশৃঙ্খলায় মাথায় চোট লাগে তার। এ ঘটনার পর আয়োজকরা নিশ্চিত হন যে, ডি সিলভার তালাক হয়নি। তবে স্বামী থেকে তিনি আলাদা আছেন।

ভুল বোঝাবুঝির কারণে আয়োজকরা তার কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। তাকে একদিনের মধ্যেই বিজয়ীর খেতাব ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে।

এদিকে ফেসবুক পোস্টে ডি সিলভা বলেন, এ ঘটনায় তিনি মাথায় আঘাত পেয়েছেন। চিকিত্সার জন্য তাকে হাসপাতালে পর্যন্ত যেতে হয়েছে। তিনি আরও জানান, তার সঙ্গে হওয়া ‘অযৌক্তিক ও অপমানজনক’ আচরণের জন্য তিনি আইনি ব্যবস্থা নেবেন।

‘মিসেস শ্রীলঙ্কা বিশ্ব সুন্দরী প্রতিযোগিতা’ দেশটির সুন্দরী প্রতিযোগিতার মধ্যে অন্যতম। প্রতিযোগিতার ফাইনাল অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *