দেশের অন্যতম পর্যটন শহর কক্সবাজারে আবারও নতুন সম্ভাবনা তৈরী হয়েছে পর্যটন শিল্পে। কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়ক লাগোয়া চকরিয়া পৌরসভার মৌলভীরকুম বাজার এলাকায় ব্যাক্তিগত উদ্যোগে গড়ে তোলা রির্সোট লেক ‘ই-হ্যাব পার্ক নতুন মেরুকরণ সৃষ্টি করেছে। মহাসড়কের পাশে কোলাহলমুক্ত পরিবেশে গড়ে তোলা নতুন এই বিনোদন স্পটটি এতদাঞ্চলে ভ্রমণপিপাসু মানুষের নিত্য চাহিদা মেটাবে ধারণা করছেন উদ্যোক্তা এবং আশপাশের লোকজন। পাশাপাশি বিনোদন স্পটকে ঘিরে অর্থনৈতিক জোন গড়ে উঠার আশাও করছেন সংশ্লিষ্টরা।
গতকাল শুক্রবার ২২ জানুয়ারী বাদে জুমা ফিতা কেটে আনুষ্ঠানিকভাবে নতুন বিনোদন স্পট ‘ই-হ্যাব পাক’ এর যাত্রা শুরু হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চকরিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ ফজলুল করিম সাঈদী।
উদ্বোধক ছিলেন চকরিয়া পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর চৌধুরী। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি শওকত হোসেন ছাড়াও পার্কটির উদ্যোক্তা ও সুধীজন। তার আগে পার্কে বিশেষ মোনাজাতের মাধ্যমে সবার জন্য উন্মর্থ করে দেওয়া হয়।
পার্কটির উদ্যোক্তারা বলছেন, বর্তমান বিশ্বে পর্যটন একটি বৃহৎ অর্থনৈতিক খাত হিসেবে বিবেচিত এবং এটি একটি বহুমাত্রিক শিল্প। সবচেয়ে দ্রুত সম্প্রসারণশীল বৃহৎ বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ড হিসেবে এ শিল্প বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি লাভ করেছে। তাই ভ্রমণপিপাসু মানুষের নিত্য চাহিদার ওপর ভিত্তি করে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়ক লাগোয়া চকরিয়া পৌরসভার মৌলভীরকুম বাজার এলাকায় ব্যক্তিগত উদ্যোগে নিরাপদ ও কোলাহলমুক্ত পরিবেশে এই বিনোদন স্পটটি গড়ে তোলা হয়েছে।
জানা গেছে, নতুন বিনোদন স্পট নয়নাভিয়াম লেক সমৃদ্ধ ‘ই-হ্যাব পার্ক’ চকরিয়া শহরের একটু দক্ষিনে ভাঙ্গারমুখ এলাকার অনতিদুরে মৌলভীরকুম স্টেশন লাগোয়া। চকরিয়া শহর থেকে মাত্র পাঁচ টাকা গাড়ি ভাড়া নিয়ে নতুন এই বিনোদন স্পটে পৌঁছা যাবে। এখানে পিকনিক স্পটের পাশাপাশি পার্কের রেস্তোরা পয়েন্টে বসে জম্পেশ আড্ডা, ছোট শিশুদের আনন্দ দিতে লেকের পানিতে নৌ বিহার ও হেসে-খেলে সময় কাটাতে দোলনার সুব্যবস্থা রাখা হয়েছে। পছন্দের খাবার পরিবেশন ছাড়াও ভ্রমনপিপাসু মানুষের চাহিদার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে নতুন বিনোদন স্পট নয়নাভিয়াম লেক সমৃদ্ধ ‘ই-হ্যাব পার্ক’কে সাজানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *