নেপালের বিপক্ষে মুজিববর্ষ ফিফা ফ্রেন্ডলি সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ দল কি ডাগআউটে পাবে প্রধান কোচ জেমি ডে’কে? নাকি তার স্বদেশি সহকারী স্টুয়ার্ট ওয়াটকিসের অভিষেক হবে আন্তর্জাতিক ম্যাচে?

আজ (সোমবার) বিকেল ৫টার দিকে হয়তো জানা যাবে এ প্রশ্নের উত্তর। কোভিড-১৯ পজিটিভ হওয়া কোচ জেমি ডে দ্বিতীয়বার করোনা পরীক্ষা করতে দিয়েছেন। বাফুফে জানিয়েছে, বিকেলে পাওয়া যাবে পরীক্ষার ফল।

ফলাফল নেগেটিভ হলে জামাল ভূঁইয়ারা প্রধান কোচ জেমিকেই পাবেন। না হলে জেমিকে ছাড়া দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে হবে। এমন কি দলকে কাতারে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ফিরতি ম্যাচ খেলতেও যেতে হতে পারে প্রধান কোচ ছাড়া। বৃহস্পতিবার ফুটবল দল কাতারের উদ্দেশ্যে উড়াল দেবে ৪ ডিসেম্বরের ম্যাচ খেলতে।

জেমি আইসোলেশনে থাকায় পরপর দুই সেশন ফুটবল দলকে অনুশীলন করিয়েছেন স্টুয়ার্ট ওয়াটকিস। সোমবার সকালে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে অনুশীলন শেষে স্টুয়ার্ট বলেছেন, ‘আমরা প্রথম ম্যাচে নেপালকে হারিয়ে সিরিজ জয়ের পথে এগিয়ে আছি। জয়ের ধারায়ই থাকতে চাই আমরা। নেপালের বিপক্ষে সিরিজ জিতেই যেতে চাই কাতারে খেলতে।’

শুক্রবার প্রথম ম্যাচে নেপালকে ২-০ হারিয়েছে বাংলাদেশ। দীর্ঘ ৫ বছর পর হিমালয়ের দেশটির বিরুদ্ধে জয় দ্বিতীয় ম্যাচ নিয়ে আগ্রহ বাড়িয়ে দিয়েছে ফুটবলপ্রেমীদের।

ধারণা করা হচ্ছে, মঙ্গলবারের ম্যাচে দর্শকের চাপ আরও বাড়বে। তবে প্রথম ম্যাচে টিকিট বিক্রির চেয়ে দর্শক বেশি গ্যালারিতে থাকায় স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে অনুসরণ হয়নি বলে প্রশ্নও উঠেছে। বাফুফে তাই দ্বিতীয় ম্যাচে আরেকটু কঠোর হবে দর্শকদের স্বাস্থ্যবিধি মানতে বাধ্য করায়।

৪ ডিসেম্বর কাতারের বিপক্ষে ম্যাচটি নিশ্চিত হওয়ার আগেই নেপালের বিপক্ষে সিরিজ চূড়ান্ত হয়েছিল বাংলাদেশের। নেপালের বিপক্ষে ম্যাচ দুটি তাই কাতারের সঙ্গে খেলার আগে দারুণ পরীক্ষা হয়ে যাচ্ছে জামাল ভূঁইয়াদের। কোচ জেমি ডে শুরু থেকেই বলে আসছিলেন, কাতারের বিপক্ষে দল তৈরির জন্য নেপালের ম্যাচ দুটি ভালো কাজে আসবে তার।

প্রথম ম্যাচ জিতে ফুটবলারদের আত্মবিশ্বাস বেড়েছে। দ্বিতীয় ম্যাচ জিতলে মানসিকভাবে চাঙ্গা হয়েই কাতার যেতে পারবে তারা। যাতে এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন ও ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজক দেশটির বিপক্ষে অ্যাওয়ে ম্যাচে ভালো পারফরম্যান্স করতে পারে।

গত বছর অক্টোবরে ঢাকায় কাতারের বিপক্ষে ২-০ ব্যবধানে হারলেও ভালো পারফরম্যান্স ছিল জামাল-সাদ উদ্দিনের। দোহায় সেই ভালো খেলার ধারাবাহিকতা বজায় থাকুক-সেটাই প্রত্যাশা সবার। তাই বাংলাদেশের ফুটবলারদের চাই আত্মবিশ্বাস আরও বাড়িয়ে নেয়া। সে আত্মবিশ্বাস আরও বাড়িয়ে দিতে পারে নেপালের বিপক্ষে ২-০ ব্যবধানে সিরিজ জয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *