কক্সবাজারে শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের জেলা স্টিয়ারিং কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (১৪ অক্টোবর) দুপুর ১২টায় জেলা প্রশাসক কার্যালয় এর শহীদ এটিএম জাফর আলম সিএসপি সম্মেলন কক্ষে জলো প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন এর সভাপতত্বিে সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় জলো প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন বলেন- কক্সবাজার শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র মূলত সমাজের ঝুঁকিতে থাকা বিপন্ন শিশুদের প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসনে কাজ করে যাচ্ছে। প্রশিক্ষণ প্রদানের ক্ষেত্রে সরকারের প্রচলিত আইন অনুযায়ী কক্সবাজারের স্থানীয় চাহিদানুসারে শিশুদের ঝুঁকিমুক্ত ট্রেডে প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে সমাজে পুনর্বাসনের ব্যবস্থার জন্য সুপরিকল্পিত পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

সমাজের ঝুঁকিতে থাকা এসব বিপন্ন শিশুদের সমাজের মূল স্রোতধারায় ফিরিয়ে আনতে সুশীল সমাজকে সংযুক্ত করতে হবে।

তিনি আরো বলেন- এসব ঝুঁকিতে থাকা শিশুদের দক্ষতা উন্নয়নের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হিসেবে গড়ে তোলায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসন পাশে ছিল, আছে এবং থাকবে।

সভার সমন্বয়কারী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান মোল্লা।

কক্সবাজার শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের উপপ্রকল্প পরিচালক ও জেলা স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য সচিব জেসমিন আকতার এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত থেকে কমিটির সদস্য হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ মতামত ব্যক্ত করেন যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপপরিচালক মোঃ সহীদ উল্লাহ, জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা আহসানুল হক, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ আসাদুজ্জামান চৌধুরী, সিভিল সার্জন এর প্রতিনিধি ডাঃ সৌনম বড়ুয়া, জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোঃ আবুল কাশেম, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপপরিচালক এর প্রতিনিধি সুমন বড়ুয়া, জেলা তথ্য অফিসার এর প্রতিনিধি মোঃ মকবুল আহমদ এবং জেলা প্রশাসক কর্তৃক মনোনীত এনজিও প্রতিনিধি মুক্তি এর প্রধান নির্বাহী বিমল চন্দ্র দে সরকার।

অনুষ্ঠানে শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের উপপ্রকল্প পরিচালক ও জেলা স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য সচিব জেসমিন আকতার কেন্দ্রের সার্বিক কার্যক্রমের চিত্র তুলে ধরে বলেন- বর্তমানে কক্সাবজারে শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের দুটি শাখায় ২০০ জন বালক ও বালিকা শিশুকে নিরাপদ আশ্রয়, খাদ্য,বস্ত্র, শিক্ষা, চিকিৎসা, মনোসামাজিক সহায়তা, চিত্তবিনোদন, জীবন দক্ষতা, কারিগরি প্রশিক্ষণ এবং পারিবারিক ও সামাজিক পুনঃএকীকরণ/পুনর্বাসনসহ উল্লেখযোগ্য মৌলিক সেবা প্রদান করা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন- বর্তমানে কক্সবাজার শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের দুটি শাখায় দুইশ জন বালক ও বালিকা শিশুকে নিরাপদ আশ্রয়, খাদ্য,বস্ত্র, শিক্ষা, চিকিৎসা, মনোসামাজিক সহায়তা, চিত্তবিনোদন, জীবন দক্ষতা, কারিগরি প্রশিক্ষণ এবং পারিবারিক ও সামাজিক পুনঃএকীকরণ/পুনর্বাসনসহ উল্লেখযোগ্য মৌলিক সেবা প্রদান করা হচ্ছে।

কেন্দ্রের সার্বিক চিত্র তুলে ধরতে গিয়ে তিনি জানান- বিগত পাঁচ বছরের স্বল্প সময়ে কেন্দ্রটি কক্সবাজার ও বান্দরবান জেলার ১২৪৬ জন ঝুঁকিতে থাকা শিশুদের সেবাপ্রদান সহ ৪৩৬ জন বালক ও ৩০৬ জন বালিকা শিশুকে পুনর্বাসন/পুনঃএকীকরণ করতে সক্ষম হয়েছে।

সভায় সদস্যবৃন্দ কেন্দ্রের কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসা করেন ও নিজ নিজ ক্ষেত্র থেকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করার আশ্বাস প্রদান করেন।

সভার আলোচ্যসূচী অনুযায়ী কেন্দ্রের বর্তমান সার্বিক অবস্থা,বাড়ি ভাড়া ও অফিস ব্যবস্থাপনা, চ্যালেঞ্জ/সীমাবদ্ধতা ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সভায় সরাসরি ভর্তিকৃত ৩৪ জন বালক ও ৩৯ জন বালিকা, মেয়াদ উত্তীর্ণ ২২ জন বালিকা এবং ৩১ জন বালিকা শিশুর নামের তালিকা সর্বসম্মতক্রমে অনুমোদন করা হয়।

পরিশেষে কেন্দ্রের কার্যক্রমের সাফল্যের ধারাবাহিকতা বজায় রাখার আশাবাদ ব্যক্ত করে ও সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভাপতি সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *