মার্কিন ওষুধ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান জনসন অ্যান্ড জনসনের করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন পরীক্ষা সময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে। এক স্বেচ্ছাসেবকের অসুস্থতা দেখা দেওয়ায় ঝুঁকি না নিয়ে ভ্যাকসিনের ট্রায়াল বন্ধের এ সিদ্ধান্ত নেয় প্রতিষ্ঠানটি।

সিএনএনের এক প্রতিবেদনে জানা যায়, সোমবার (১২ অক্টোবর) প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয়, তাদের চূড়ান্ত ধাপের করোনার ভ্যাকসিনের পরীক্ষা বন্ধ করা হয়েছে। কারণ, তাদের পরীক্ষামূলক ভ্যাকসিনটি নেওয়ার পর একজনের অসুস্থতা দেখা গেছে।

জনসন অ্যান্ড জনসন এক বিবৃতিতে জানায়, ‘আমাদের নীতিমালা অনুসরণ করে স্বেচ্ছাসেবীর অসুস্থতার বিষয়টি পর্যালোচনা করা হচ্ছে। আমরা নিরাপত্তার বিষয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আমাদের সব পরীক্ষা নীতিমালা মেনে করা হয়। এতে কোনো মারাত্মক প্রতিক্রিয়া দেখা গেলে পরীক্ষা বন্ধ করে দেওয়া হয়।’

জনসন অ্যান্ড জনসনের তৈরি ভ্যাকসিনের নাম ‘জ্যানসেন’। গত মাসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তৃতীয় ধাপের পরীক্ষায় ৬০ হাজারের বেশি স্বেচ্ছাসেবীর ওপর পরীক্ষা করা হয়। এর আগে প্রথম ও দ্বিতীয় দফার পরীক্ষায় আশানুরূপ ফল পাওয়া যায় বলে জানায় মার্কিন ওষুধ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানটি।

এদিকে ব্রাউন ইউনিভার্সিটি স্কুল অব পাবলিক হেলথের ডিন আশিস ঝা বলেন, বড় পরীক্ষায় এমন সাময়িক বন্ধ হওয়ার ঘটনা একাধিকবার ঘটতে পারে।

করোনার ভ্যাকসিন পরীক্ষা বন্ধ হওয়ার এটি দ্বিতীয় ঘটনা। গত মাসে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনটির পরীক্ষাও বন্ধ হয়ে যায়। একজন স্বেচ্ছাসেবকের স্নায়বিক জটিলতা দেখা দেওয়ার পর ভ্যাকসিনের পরীক্ষা বন্ধ করে দেওয়া হয়। এর আগে এক স্বেচ্ছাসেবীর দেহে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেওয়ায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের ট্রায়াল। পরবর্তীতে আবারও শুরু হয় অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের ট্রায়াল প্রক্রিয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *