মাদক ব্যবসার সঙ্গে যারা জড়িত আছে তাদের নতুন তালিকা তৈরী করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মো. আনোয়ার হোসেন।

মঙ্গলবার দুপুরে কক্সবাজার সদর মডেল থানা পরিদর্শনকালে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।
ডিআইজি আনোয়ার বলেন, মাদক ব্যবসার সাথে যারা জড়িত আছে তাদের নতুন তালিকা তৈরী হবে। তালিকা করে তাদের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে কি ধরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে, কি ধরণের মামলা আছে, কার প্রোফাইল কি; সকল কিছু যাচাই করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
কক্সবাজারের সকল পুলিশ সদস্য একযোগে বদলী হওয়াকে অবশ্যই একটি ব্যতিক্রমি ঘটনা উল্লেখ করে ডিআইজি বলেন, কক্সবাজার জেলা পুলিশের সকল সদস্যই নতুনভাবে যোগদান করেছেন। একসঙ্গে সবাই পরিবর্তন হয়েছে। নতুনভাবে যারা কাজে যোগদান করেছেন তাদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করা, তাদের কাজের গতিশীলতা আরো বৃদ্ধি করা এবং তাদের সবাইকে পেশাদারিত্বে সাথে দায়িত্ব পালন করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

“এখানে (কক্সবাজারে) পুলিশ সুপারও নতুন। অন্যান্য সিনিয়র লেভেলে সকল পুলিশ অফিসারই নতুন। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারাও নতুন। থানার সকল সাব-ইন্সপেক্টর থেকে শুরু করে কনস্টেবল পর্যন্ত সবাই নতুন। তারা যে লক্ষ্য নিয়ে এখানে এসেছে আমরা সেই লক্ষ্য বাস্তবায়ন করতে চাই।”
শান্তি-শৃংখলা রক্ষার ক্ষেত্রে পুলিশের যে ভূমিকা আছে সেটা পেশাদারিত্বের সাথে পালন করতে চান বলে মন্তব্য করেন আনোয়ার হোসেন।
তবে দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে সকল পুলিশ সদস্য চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত আছে ্উল্লেখ করে ডিআইজি বলেন, সাবাই কক্সবাজার আসার আগে মানসিকভাবে প্রস্তুতি নিয়ে এসেছে। এখনো সবাই অপরাধ প্রবণতা দূর করার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুতও আছে।
“মাদক ও অন্যান্য আইন-শৃংখলা বিঘ্নকারি যে অপরাধ আছে, এগুলো নিয়ন্ত্রণের জন্য থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আছে। এ জোনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে যিনি দায়িত্বে আছেন তাদের নিয়ে আজকে একটি পৃথক সভা করা হবে। এতে তাদেরকে দিক-নির্দেশনা দিয়ে যাব। যেন পেট্রোলিংটা বাড়ানো হয়। এছাড়া যে অপরাধ প্রবণ এলাকাগুলো আছে সেখানে দিনে বা রাতে যখন অপরাধটা তখন পেট্রোলিং বাড়ানো হবে।”
এছাড়া পুলিশের সকল পর্যায়ে শৃংখলা রক্ষায় জোর দেয়া হবে বলে মন্তব্য করেন আনোয়ার।
ডিআইজি বলেন, “পুলিশের চলমান রুটিন কাজে জোর দেয়ার পাশাপাশি পুলিশের সকল পর্যায়ে শৃংখলা থাকে সেই প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। এছাড়া সকল প্রকার দুর্নীতি থেকে সকলে বিরত থাকা এবং সবাইকে পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করা; এ বিষয়গুলোর প্রতি আমাদের প্রচেষ্টা থাকবে।”
অনেক কারণে পুরো জেলা পুলিশে আমূল রদ-বদল হয়েছে মন্তব্য করে আনোয়ার বলেন, “আমরা এ চেইঞ্জটাকে শুধু ব্যক্তি পরিবর্তনের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে এর সুফল যেন মানুষ ভোগ করতে পারে; সেই দিকে নজর দিব। আমরা চেষ্টা করে যাব নতুনভাবে যারা এসেছেন, তারা সকলেই জনকল্যানকেই প্রধান্য দিয়ে জনস্বার্থে-জনশৃংখলা বজায় রাখার জন্য কাজ করবেন।”
কক্সবাজার সদর থানা পরিদর্শনকালে জেলার নবাগত পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান সহ পুলিশের জেলার উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে ডিআইজি আনোয়ার হোসেন ২ দিনের জন্য কক্সবাজার সফরে এসে সকালে চকরিয়া থানা পরির্দশন করে। বিকালে রামু থানা পরিদর্শনের কথা রয়েছে। পর্যায়ক্রমে তিনি কক্সবাজারের আটটি থানা পরিদর্শন করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *