নারী ফুটবলাররা বেশ কয়েকবার সাক্ষাত করেছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে। দক্ষিণ এশিয়ার কয়েকটি টুর্নামেন্টে সাফল্য পাওয়ার পর ফুটবলের মেয়েদের গণভবনে ডেকে সংবর্ধনা ও লাখ লাখ টাকা পুরস্কারও দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা।

প্রধানমন্ত্রীর কাছে গিয়ে প্রথমে মারিয়া, সানজিদা, তহুরারা তাকে ম্যাডাম বলে ডাকতেন। তখন প্রধানমন্ত্রী সবাইকে বলেছিলেন, ‘তোমরা আমার নাতির মতো। সবাই দাদি বা নানী বলবা আমাকে।’

তারপর থেকে যখনই প্রধানমন্ত্রীর কাছে যাওয়ার সুযোগ হয়েছে নারী ফুটবলারদের, তখনই সবাই তাঁকে কেউ দাদি, কেউ নানী বলে ডেকেছেন। আজ ২৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন। নারী ফুটবলারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন।

সানজিদা, তহুরা, মারিয়া মান্ডা, শামসুন্নাহাররা নিজের নিজেদের ফেসবুকে ওয়ালে প্রধানমন্ত্রীর ছবি দিয়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। কেউ লিখেছেন, ‘শুভ জন্মদিন নানু’, কেউ লিখেছেন ‘শুভ জন্মদিন দাদি।’

সানজিদা আক্তার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার দুটি ছবি দিয়ে লিখেছেন, ‘হ্যাপি বার্থডে টু ইউ নানু, হ্যাভ এ লাভলি বার্থডে।’ তার পোস্টে কমেন্টস বক্সে মারিয়া মান্ডা লিখেছেন, ‘হ্যাপি বার্থডে দাদি।’ সানজিদার পোস্টের নিচে আরও অনেক নারী ফুটবলার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

দেশের এ নারী ফুটবলারদের বঙ্গবন্ধু কন্যা অনেক আদর করেন। যখনই কোনো সাফল্য এসেছে নারী ফুটবলে তখনই প্রধানমন্ত্রী মেয়েদের ডেকে নিয়েছেন তার কাছে। দীর্ঘসময় কথা বলেন, মাথায় হাত বুলিয়ে আদর করেন, লাখ লাখ টাকা দেন, সেই সঙ্গে বিভিন্ন উপহার। মেয়েদের নিজ হাতে খাওয়ানও জাতির জনকের কন্যা।

তহুরা খাতুন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার চারটি ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, ‘হ্যাপি বার্থডে টু ইউ নানু।’ নিচে সানজিদা লিখেছেন, ‘হ্যাপি বার্থডে নানী।’ শামসুন্নাহার প্রধানমন্ত্রীর ছবি দিয়ে লিখেছেন, ‘হ্যাপি বার্থডে টু ইউ।’

জুনিয়র শামসুন্নাহার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার নিজের একটি ছবি দিয়ে লিখেছেন, ‘শুভ জন্মদিন বাঙালির আশার বাতিঘর, মমতামীয় নেত্রী, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমরা আপনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করি।’

নারী ফুটবলারদের অনেকে নিজের ফেসবুক প্রোফাইল পিকচারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি দিয়ে তাঁকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *