সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যারা মারা দুই কর্মকর্তার পরিবার ৫০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ পাচ্ছে। প্রথম ক্ষতিপূরণ পাচ্ছে প্রয়াত প্রতিরক্ষা সচিব আবদুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী এবং সিলেট এমএজি ওসমানি মেডিক্যাল কলেজের চিকিৎসক মো. মঈন উদ্দীনের পরিবার।

সস্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ উভয় পরিবারের নামে ৫০ লাখ টাকা করে মোট ১ কোটি টাকা মঞ্জুরি দিতে দু’টি আলাদা চিঠি পাঠিয়েছে অর্থ বিভাগের প্রধান হিসাব কর্মকর্তার কাছে।

অর্থ বিভাগের যুগ্ম সচিব মোহাম্মদ আবু ইউসুফ স্বাক্ষরিত উভয় চিঠিতে বলা হয়েছে, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যারা মারা দুই কর্মকর্তার

পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা করে মোট ১ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ হিসেবে মঞ্জুরি দিতে প্রধান হিসাব কর্মকর্তাকে বলা হয়েছে। চলতি ২০২০–২১ অর্থবছরের বাজেটে ‘স্বাস্থ্যঝুঁকি বাবদ ক্ষতিপূরণের জন্য বিশেষ অনুদান’ খাতে যে ৫শ কোটি টাকা বরাদ্দ রয়েছে, তা থেকে এ ব্যয় করা হবে। তাদের স্ত্রীদের কাছে ক্ষতিপূরণের চেক হস্তান্তর করবেন অর্থ বিভাগের ড্রইং অ্যান্ড ডিসবার্সিং অফিসার (ডিডিও)।

এই দু’জনের পরিবারকে দেওয়ার মধ্য দিয়েই শুরু হচ্ছে ক্ষতিপূরণ দেওয়া কার্যক্রম। প্রথমে যারা করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন তাদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। এরপর ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে যারা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের।

গত ৫ এপ্রিল চিকিৎসক মঈন উদ্দীনের করোনা পজিটিভ আসে। অবস্থার অবনতি ঘটলে ৭ এপ্রিল তাকে সিলেট নগরীর শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালের করোনা ইউনিটে আইসোলেশনে রাখা হয়। সেখান থেকে পরবর্তীসময়ে পরিবারের সিদ্বান্ত অনুযায়ী তাকে ঢাকায় কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানেই তিনি মারা যান। এরপর তার স্ত্রী চিকিৎসক চৌধুরী রিফাত জাহান ক্ষতিপূরণের জন্য আবেদন করেন। এ পরিপ্রেক্ষিতে ক্ষতিপূরণ নিতে রিফাত জাহানেরর কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

প্রয়াত সচিব আবদুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী মারা যান গত ২৯ জুন। মে মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকেই অসুস্থ ছিলেন তিনি। চিকিৎসা নিচ্ছিলেন বাসায়। পরে তাকে সিএমএইচে নেওয়া হয়। সেখানে তার করোনা শনাক্ত হয়। দুই সপ্তাহ ধরে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) থাকার পর মারা যান। ক্ষতিপূরণ নেওয়ার চিঠি পাঠানো হয়েছে তার স্ত্রী গুল সাকিনা পারভীনকে।

করোনা পরিস্থিতিতে সরকারি চাকরিজীবীদের কাজে উদ্বুদ্ধ করতে সরকারের পক্ষ থেকে ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল সরকারি কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনায় আক্রান্ত হলে ক্ষতিপূরণ বাবদ গ্রেডভেদে পাঁচ থেকে ১০ লাখ টাকা পাবেন। আর মারা গেলে পাবেন ২৫ থেকে ৫০ লাখ টাকা। গত ২৩ এপ্রিল অর্থ মন্ত্রণালয়ের একটি পরিপত্র জারি করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *