করোনায় বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে বেশি চাহিদা বেড়েছে পিপিই, মাস্ক ও গ্লাভসের। এসব স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রীর বিশ্ববাজার এখন চীনের দখলে। কিন্তু করোনার উৎপত্তিস্থল চীন হওয়ায় এসবের বাজার হারানোর শঙ্কায় রয়েছে দেশটি। ফলে বাংলাদেশের সামনে তৈরি পোশাকের পাশাপাশি এসব পণ্য রফতানির বিশাল সম্ভাবনা হাতছানি দিচ্ছে। এ সম্ভাবনাকে লুফে নিতে তৎপর সরকার।

এ বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বলছে, হয়তো অল্প কিছুদিনের মধ্যেই করোনার তীব্রতা কমবে। তবে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও দেশীয় সংস্থার দেয়া তথ্য অনুযায়ী করোনামুক্ত পৃথিবী পেতে আরও অন্তত দু-তিন বছর সময় লাগবে। এ সময়ে পিপিই (পার্সোনাল প্রোটেকশন ইক্যুইপমেন্ট), মাস্ক ও গ্লাভসের মতো স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রীর চাহিদা বিশ্বে আরও বাড়বে।

এদিকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র বলছে, প্রাণঘাতী করোনার প্রভাবে বিশ্বব্যাপী অর্থনীতিতে ব্যাপক পরিবর্তন আসছে। শুরু হয়েছে নতুন অর্থনৈতিক মেরুকরণ ও বিনিয়োগ বহুমুখীকরণ। বিশেষ করে করোনার উপত্তিস্থল চীন হওয়ায় দেশটি থেকে বিশ্বের অনেকেই মুখ ফিরিয়ে নেবে বলে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এতে বাংলাদেশের সম্ভাবনার দ্বার খুলতে যাচ্ছে। বাংলাদেশ আগে থেকেই মাস্ক, গ্লাভস রফতানি করে। এখন বিশ্বমানের পিপিইও রফতানি শুরু করেছে। তাই চীনের হারানো বাজার বাংলাদেশের পক্ষে দখল নেয়া খুব সহজ হবে বলে মনে করছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এ জন্য এসব পণ্য উৎপাদন ও রফতানিকারকদের বিভিন্ন নীতি সহায়তার পাশাপশি প্রণোদনার কথাও ভাবছে সরকার।

এ বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (রফতানি) মো. ওবায়দুল আজম জাগো নিউজকে বলেন, করোনাকালে বিশ্বব্যাপী মাস্ক, পিপিইসহ অন্যান্য স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রীর চাহিদা বাড়ছে। বিশ্বব্যাপী এসব পণ্যের বাজার চীনের দখলে। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে চীন তাদের বাজার হারানোর শঙ্কায় রয়েছে। বাংলাদেশ সেটাকে কাজে লাগিয়ে বাজার দখলের সুযোগটা নিতে চায়।

তিনি বলেন, এ সম্ভাবনাকে কীভাবে কাজে লাগানো যায় সেজন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এসব পণ্য উৎপাদন ও রফতানিকারকদের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে বাজার ধরতে সরকার নীতি সহায়তার পাশাপাশি প্রণোদনার কথাও ভাবছে। এ জন্য ব্যবসায়ীদের সংগঠনের পাশাপাশি সুনির্দিষ্ট কারখানার সঙ্গেও যোগাযোগ করা হচ্ছে।

অতিরিক্ত সচিব আরও বলেন, সারাবিশ্বে অন্যান্য পণ্যের রফতানি বাড়াতেও প্রণোদনার আওতা বৃদ্ধি করতে পারে সরকার। এসব বিষয়ে রফতানিকারকদের সঙ্গে আলোচনা চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *