চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে গত ৩১ ডিসেম্বরে প্রথমবারের মতো শনাক্ত হয় প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। এরই মধ্যে বিশ্বের অন্তত ১৯৮টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে এই ভাইরাস। এতে এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ২১ হাজার ১৪৮ জন। আক্রান্ত হয়েছেন ৪ লাখ ৬৬ হাজার ৭৫৯ মানুষ। আক্রান্তদের মধ্যে ১ লাখ ১৩ হাজার ৮০৮ জন চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

সুস্থ হয়ে ওঠা ১২ জন রোগীর ফুসফুস সম্প্রতি পরীক্ষা করে তাদের দুই-তিনজনের ফুসফুসের কার্যকারিতা কমেছে বলে প্রমাণ পেয়েছেন দেখেছেন হংকংয়ের গবেষকরা।

গবেষকরা বলেছেন, কম্পিউটার টোমোগ্রাফিতে তাদের ফুসফুসে তরল ও ময়লাভর্তি ঝিল্লি বা থলি পাওয়া গেছে।

‘রোগ সেরে গেলেও করোনার কারণে ফুসফুসের কার্যকারিতা ২০ থেকে ৩০ শতাংশ কমে যেতে পারে,’- বলছিলেন হংকংয়ের প্রিন্সেস মার্গারেট হাসপাতালের ইনফেকশাস ডিজিজেস সেন্টারের মেডিকেল ডিরেক্টর ডা. ওয়েন সাঙ তাক-ইন।

এর আগে ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুতে উহান বিশ্ৱবিদ্য়ালয়ের ঝংনাম হাসপাতালের বিজ্ঞানীরা ১৪০ জন রোগীর ফুসফুস পরীক্ষা করেছিলেন। প্রতিটি রোগীর দুটি ফুসফুসেই ‘গ্রাউন্ড গ্লাস অপাসিটি’র খোঁজ পেয়েছিলেন তারা।

অর্থাৎ, দুই গবেষণাতেই করোনা আক্রান্ত রোগী সুস্থ হয়ে উঠলেও তাদের ফুসফুসের কার্যকারিতা কমার তথ্য মিলেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *