জন নিরাপত্তা আইনে গৃহবন্দি জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লা অবশেষে মুক্তি পেতে চলেছেন। সংবিধানের ৩৭০ ধারা খারিজ করে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর থেকেই গৃহবন্দি ছিলেন ফারুক আবদুল্লা। দীর্ঘ সাত মাস পর অবশেষে তিনি মুক্তি পেতে চলেছেন।

গত ৫ অগস্ট জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে নেয় কেন্দ্র। পাশাপাশি জম্মু-কাশ্মীরের থেকে লাদাখকে আলাদা করে দুটি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হয়। তারপরই একাধিক বিধিনিষেধ আরোপ করা হয় জম্মু-কাশ্মীরে। গণ নিরাপত্তা আইনে বন্দি করা হয় ফারুক আবদুল্লা-সহ একাধিক নেতাকে। এই তালিকায় রয়েছেন তার ছেলে ও জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা এবং আরও এক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী পিডিপি নেত্রী মেহবুবা মুফতি। ফারুক আবদুল্লার মেয়ে ট্যুইট করে বলেছেন, ‹আমার বাবা আবার একজন মুক্ত মানুষ।›
আরও দুই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা এবং মেহবুবা মুফতির মুক্তি চেয়ে ট্যুইট করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

গণ নিরাপত্তা আইন বা পাবলিক সেফটি অ্যাক্ট অনুযায়ী কোনও ট্রায়াল ছাড়াই অভিযুক্ত ব্যক্তিকে দু-বছর পর্যন্ত বন্দি করে রাখা যায়। ফারুক আবদুল্লার বিরুদ্ধে যে অভিযোদ আনা হয়েছে, তাতে তিন মাস পর্যন্ত তাঁকে আটক করা যায়। এর আগে একবার তাঁকে আটক রাখার মেয়ার বৃদ্ধি করে সরকার। তার নিজের বাসভবনেই এতদিন গৃহবন্দি করে রাখা হয় ফারুক আবদুল্লাকে। সূত্র : টাইমস
অব ইন্ডিয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *