বাধ্যতামূলক পুরুষ অভিভাবকত্ব আইন শিথিল করতে যাচ্ছে সৌদি সরকার। এ আইন পরিবর্তন হলে নারীদের একাকী বিদেশ ভ্রমণে কোনো বাধা থাকবে না।

সৌদি গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, চলতি বছরেই ১৮ বছরের বেশি বয়সের নারীদের জন্য ভ্রমণের ওপর কড়াকড়ি কমে যাবে। তবে এ বিষয়ে সৌদি সরকার এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো কিছু জানায়নি।

রক্ষণশীল দেশ হিসেবে পরিচিত সৌদি আরবে নারীদের বিদেশ সফরে পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি নিতে হয়। তাছাড়া ২১ বছরের কম বয়সী ছেলেদের বিদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে অভিভাবকের অনুমতি নেয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের ভিশন-২০৩০ অনুযায়ী আইনটি সংস্কার করার উদ্যোগ নিয়েছে দেশটির রাজপরিবার। এ বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে সৌদি মন্ত্রীসভা।

বিদ্বমান আইনটির কারণে সৌদি আরবে নারীদের অধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলছিল আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো।

বিয়ে ও বিয়েবিচ্ছেদ এবং পাসপোর্ট তৈরির জন্যও সৌদি নারীদের তাদের পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি নিতে হয় বলে জানিয়েছে তারা।

মানবাধিকার সংস্থাগুলোর অভিযোগ, এ আইনের কারণে দেশটির নারীরা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে পারিবারিক নির্যাতন ও যৌন সহিংসতার কোনো বিচার চাইতে পারে না।

সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকজন সৌদি তরুণী পালিয়ে গিয়ে বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নেয়ায় সৌদি সরকার অভিভাবকত্ব আইনে পরিবর্তন আনার চিন্তা করছে বলে জানা যায়।

Comments are closed.