ফাইনালের লক্ষ্যে মাঠে নামছে বাংলাদেশ

4

বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ড ম্যাচের একটি বলও মাঠে গড়ায়নি। সেদিন আকাশ না কাঁদলে হয়তো শেষ হাসি হাসার কথা ছিল টাইগারদেরই। কারণ সাম্প্রতিক ফর্ম কিন্তু তাই বলে। আর এমনটা হলে বাংলাদেশও ফাইনালের পথে পা দিয়েই রাখতো। কিন্তু অপেক্ষা বাড়িয়েছে বৃষ্টি।

ফাইনালের টিকিট কাটতে টাইগারদের সব মনোযোগ তাই আজকের ম্যাচকে ঘিরে। ম্যালাহাইডে বাংলাদেশ-উইন্ডিজ ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল পৌনে ৪ টায়।

ইতোমধ্যে দুই ম্যাচ জিতে ফাইনাল নিশ্চিত করেছে হোল্ডার বাহিনী। আর আজ ফাইনালের জন্যই মাঠে নামছে বাংলাদেশ। তাই কোন চাপ নয়। শুধু নিজেদের সহজাত ক্রিকেটের দিকেই খেয়াল থাকবে টাইগারদের। তবে ধারাবাহিকতা বজায় রাখাই বড় চ্যালেঞ্জ তাদের সামনে।

জয়ে চোখ থাকলেও তা মোটেও সহজ হবে না টাইগারদের জন্য। কারণ ক্যারিবীয়ানরাও আছে নিজেদের সেরা ছন্দে। দ্বিতীয় ম্যাচে এই বাংলাদেশের কাছে হারলেও তার পরের ম্যাচেই আবার ঘুরে দাঁড়িয়েছে বেশ শক্তভাবেই। স্বাগতিকদের দেয়া সোয়া তিনশো রান টপকে গেছে ৫ উইকেট হাতে রেখেই। দারুণ ছন্দে আছে শেই হোপ। আর গত ম্যাচে তো সুনীল এ্যাম্ব্রিস খেলেই ফেললেন ১৪৮ রানের এক ইনিংস। যা আইরিশদের বিপক্ষে জয়ে বড় ভূমিকা রেখেছে। এছাড়া বাকিরাও আছে বেশ কার্যকরী ভূমিকায়।

তবে বিন্দুমাত্র পিছিয়ে নেই বাংলাদেশও। নিজেদের প্রথম ম্যাচে তারা মাটিয়ে নামিয়েছিল উড়তে থাকা এই উইন্ডিজকেই। ব্যাট, বল কিংবা ফিল্ডিং তিন বিভাগেই সমানতালে খেলেছে টিম টাইগার্স। ফলাফল ৮ উইকেটের জয়। সৌম্যর ফর্ম মাশরাফি শিবিরে একটু বেশি স্বস্তি জোগাবে। তামিমও ইনিংস মেরামতে ভূমিকা রাখছে প্রতিনিয়ত। হাসছে সাকিবের ব্যাটও। আর মুশফিক, রিয়াদ, মিঠুনরা একসাথে জ্বলে উঠলে বিপক্ষ দলের জন্য হারের প্রহর গোনা হবে সময়ের ব্যাপার মাত্র।

আজ পরিবর্তন আসতে পারে বাংলাদেশ দলে। তাসকিন কিংবা রাহি, এদের দুজনের একজনকে আজ সেরা একাদশে দেখা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে ড্রাগ আউটে বসতে হতে পারে মোস্তাফিজকে। আর সাব্বিরের জায়গায় সৈকত খেললেও অবাক হওয়ার কিছুই থাকবে না।