সম্রাট শাহজাহান – অশ্রু জলে বেদনার ভারে ভারাক্রান্ত তোমার তাজমহল !!!

594

পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্য মানব কৃতির মধ্যে সম্রাট শাহজাহানের প্রিয়তমা স্ত্রী মমতাজের স্মৃতিতে গড়া আগ্রার তাজমহল একটি।
পৃথিবীর সকল প্রান্ত হতে ছুটে আসছে সৌন্দর্য্য পিপাসু, ইতিহাস পাগল, ভ্রমণ পিপাসু পর্যটক ও দর্শনার্থীরা।
প্রতিদিন হাজারো হিন্দু,বৌদ্ধ,খৃষ্টান, মুসলিম নারী পুরুষ শিশুরা পঙ্গপালের মত ছুটে আসছে মর্মর পাথরে গড়া আগ্রার তাজমহলে, শুধু অন্তরের ক্ষুদা নিবারণের জন্য।আমিও তাদের মত একজন ক্ষুদে দর্শনার্থী। কিন্তু দর্শনের সাথে সাথে আমার অন্তর চিৎকার করে উঠল- সম্রাট শাহাজাহান তুমি আজ কোথায় ? কোথায় তোমার দম্ভস্তম্ভ?
সুযোগ্য উত্তরসূরী রেখে যেতে পারনি বলে, তোমার ভালবাসার স্মৃতি আজ ক্ষয়প্রাপ্ত । শত্রু সরকার রাজ্য দখল করে আয়ের উৎস বানিয়েছে কিন্তু প্রতিদিন ক্ষয়প্রাপ্ত হচ্ছে তোমার ভালবাসার কৃতির্, মুসলিমদের চোখের জলে সিক্ত হয়ে ঝড়ে পড়তে শুরু করছে কষ্টি পাথর।এখানে আর নেই তোমার রেখে যাওয়া সেই মহা মূল্যবান হীরা, যহরত, মুক্তা, মানিক আর কহিনুর। ওগুলো এখন শোভা ছড়াচ্ছে লন্ডনের মিউজিয়ামে আর দিল্লীর মসনদে। তোমর মহল এখন শুধুই অন্ধকার।
সম্ররাট শাহাজাহান তুমি ভালবাসলে পারস্যের সুন্দরী তোমার প্রিয়তমা স্ত্রী মমতাজ কে
অথচ ভালবাসলে না মুসলমানদের, যারা তোমাদেরকে সিংহাসনে বসালো। ভালবাসলে না জাতি সত্তাকে। তোমাদের মত কাপুরুষদের কারণে মুসলিম শাসনের মসনদ আজ বাতিলের দখলে।
অংশিবাদী কুফররা বুটের তলে পদপিষ্ট করে চলছে মুসলমানদের কলিজার টুকরো স্থাপনা সমূহ।
হে- সম্রাট শাহাজাহান তুমি ২০ বছর বা ২২ বছর ধরে ২০ হাজার বা ২২ হাজার শ্রমিক দিয়ে হাজার কোটি টাকার সম্পদ বিনষ্ট করে যে স্বৃতি তৈরী করে গেলে, তার সিকিভাগ ও যদি মুসলিম রাজ্য বিস্তার আর মুসলিমদের রক্ষার জন্য ব্যয় করে যেতে, তাহলে আজ খোদাদ্রোহীরা মুসলিমদের কলিজার টুকরা বাবরি মসজিদ ভেঙ্গে রাম মন্দির করতে পারত না। শত ধিক তোমাদের মত অযোগ্য কাপুরুষ মুসলিম পূর্বসূরীদের, যাদের বিলাসিতা আর অযোগ্যতার দরুন শত সহস্র বছরের জন্য মুসলমানদের গর্দানে গোলামীর জিঞ্জির পড়তে হল।
বহুজাতিক হাজারো দর্শনার্থীর ভিড়ে তোমার রেখে যাওয়া স্মৃতির তলে এসে, জালিমের শোষণে পিষ্ট হওয়া তোমার স্বজাতি বেদনার অশ্রু দিয়ে তোমার প্রতি ষৃণা আর বদদোয়া দিয়ে যাচ্ছে প্রতিদিন,প্রতিক্ষণ। মজলুমরা বেদনার অশ্রুজলে প্রার্থনা করছে, হে প্রভু আপনার প্রিয় বান্দাদের ললাঠে যেন ওদের মত কুলঙ্গার শাষক আর না জোটে। আপনি ভারত বর্র্ষে এক ওমর পাঠান। পাঠান আরেক স্পেন বিজয়ী মুসা কে। সেদিন আর বেশী দুরে নয়-যেদিন বখতিয়ার খিলজির ঘোড়ার খুরের আওয়াজ শুনা যাবে। জালিম শাহীদের দিল্লীর মসনদকে ভেঙ্গে টুকরো টুকরো করে দিয়ে পূর্বসূরীদের মসনদে বিজয় নিশান উড়াবে।